শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:০০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
বাগেরহাটে ওয়ার্কিং কমিটির মৎস্য প্রক্রিয়াজাত কারখানা পরিদর্শণ হাজারো বেকারের কর্মসংস্থান তৈরীর লক্ষ্যে কাজ করছেন তারা বাগেরহাটে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের কর্মবিরতি বাগেরহাটে পরিবার পরিকল্পনা সেবার মান উন্নয়নে ওয়ার্কিং কমিটির সভা রামপালে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বসতবাড়িতে ঢুকে গাছপালা কর্তনের অভিযোগ বা‌গেরহা‌টে কনসালটেশন ওয়ার্কশপ অনু‌ষ্ঠিত বাগেরহাটে আন্তর্জাতিক মাদক বিরোধী দিবস পালিত বাগেরহাটে মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান কর্মসূচির উপকারভোগীদের প্রশিক্ষন শুরু দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের দাত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে – শেখ তন্ময় এমপি চিতলমারীতে বিক্ষোভকারীদের ইটের আঘাতে কৃষকলীগ নেতা আহত




খুলনায় এবার ৩০টি হাটে কোরবানির চাহিদা মেটাবে দুই লাখ পশু

খুলনা প্রতিনিধি
  • প্রকাশ: শুক্রবার, ২ আগস্ট, ২০১৯

পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে খুলনা মহানগর ও জেলায় এবার গবাদি পশুর ৩০টি হাট বসছে। এরমধ্যে ৯ উপজেলায় ২৯টি ও মহানগরে বসবে একটি হাট। মঙ্গলবার (৬ জুলাই) খুলনা সিটি করপোরেশনের ব্যবস্থাপনায় নগরীর জোড়াগেট বাজার চত্বরে কোরবানির পশুর হাট আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্বোধন করা হবে।
এদিকে আসন্ন ঈদুল আজহায় কোরবানির জন্য এসব হাটে বিক্রির লক্ষ্যে জেলার বিভিন্ন স্থানে প্রস্তুত করা হয়েছে দুই লাখ গবাদী পশু। স্থানীয় খামারেই এই পশুর উৎপাদন হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছে প্রাণি সম্পদ অধিদফতর। এবার চাহিদার তুলনায় যোগান বেশি হবে বলেও জানিয়েছেন তারা।
চাহিদার তুলনায় স্থানীয় খামারগুলোতে গরু বেশি থাকায় এবার অন্য কোথাও থেকে খুলনা বিভাগে পশু আনতে হবে না বলে জানিয়েছে খুলনা বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অধিদফতর।
প্রাণিসম্পদ অধিদফতর সূত্রে জানা যায়, খুলনা বিভাগের ১০ জেলায় প্রায় ছয় লাখ পশু কোরবানির সম্ভাবনা রয়েছে। খামারি ও ব্যক্তি পর্যায়ে বিভাগে সাত লাখ ৩১ হাজার ৮৪৪টি কোরবানিযোগ্য পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। কোরবানির পশুর জন্য কারও মুখাপেক্ষী হতে হবে না। বরং অভ্যন্তরীণ চাহিদা মিটিয়ে আরও এক লাখ ২৫ হাজার পশু দেশের অন্য বিভাগে পাঠানো হবে।
খুলনা বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মাসুদ আহমেদ খান বলেন, খুলনার ১০ জেলায় চাহিদা অনুযায়ী খামারগুলোতে পর্যাপ্ত সংখ্যক পশু আছে। অভ্যন্তরীণ পশু দিয়েই কোরবানির পশুর চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে। এতে স্থানীয় খামারিরা লাভবান হবেন।
তিনি বলেন, খুলনার ১০ জেলায় মোট এক লাখ ৩৯ হাজার ৫৩৯ জন খামারি রয়েছেন। এতে সাত লাখ ৩১ হাজার ৮৪৪টি কোরবানিযোগ্য পশু প্রস্তুত করা হয়েছে। এর মধ্যে ষাঁড় রয়েছে দুই লাখ ৮০ হাজার ৪৮টি, বলদ গরু ৩১ হাজার ১৫০টি, গাভি (বাচ্চা উৎপাদনে অক্ষম) ৩৩ হাজার ৩৭৯টি, মহিষ ১৯ হাজার ৩৩টি, ছাগল তিন লাখ ৭৫ হাজার ২৭০টি ও ভেড়া নয় হাজার ৪৪৩টি। অন্যান্য গবাদি পশু আছে ৬২১টি। এগুলো কোরবানির পশুর হাটে তোলা হবে।
হাজার হাজার মানুষের সমাগমে কোটি কোটি টাকার লেনদেন হবে হাটগুলোতে। তাই সবকিছু মাথায় রেখে এবার পশুর হাটে নিরাপত্তার পরিকল্পনা করছে আইন-শৃঙ্খালা বাহিনী।
খুলনা জেলা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-ওয়াস) আব্দুর রশীদ বলেন, জেলার নয় উপজেলায় মোট ২৯টি স্থায়ী ও অস্থায়ী হাট বসবে। এরমধ্যে স্থায়ী হাট ১২টি। অস্থায়ী ১৭টি। রূপসায় চারটি, ফুলতলায় একটি, পাইকগাছায় পাঁচটি, ডুমুরিয়ায় পাঁচটি, তেরখাদায় একটি, দিঘলিয়ায় চারটি, দাকোপে দু’টি, কয়রায় ছয়টি ও বটিয়াঘাটা উপজেলায় একটি পশুর হাট বসবে। জেলার উল্লেখযোগ্য হাটগুলোর মধ্যে রয়েছে, রূপসা উপজেলার তালিমপুর ও পূর্ব রূপসা বাসস্ট্যান্ড, ফুলতলা উপজেলা সদর, ডুমুরিয়া উপজেলার খর্নিয়া, শাহাপুর, আঠারো মাইল, চুকনগর, পাইকগাছা উপজেলার চাঁদখালী, গদাইপুর, কাছিকাটা, পাইকগাছা জিরোপয়েন্ট, দাকোপ উপজেলার বাজুয়া, চালনা, কয়রা উপজেলার দেউলিয়া, গোবিন্দপুর, কালনা, ঘুগরাকাঠি, মান্দারবাড়িয়া, হোগলা, দিঘলিয়া উপজেলার এম এম মজিদ কলেজ মাঠ, জালাল উদ্দিন কলেজ মাঠ, পথেরবাজার মাধ্যমিক বিদ্যালয়, তেরখাদা উপজেলার ইখড়ি কাটেঙ্গা, বটিয়াঘাটা উপজেলার বাইনতলা।
খুলনা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিচুর রহমান বলেন, কোরবানির পশুর বাণিজ্য ঘিরে জাল নোটের ব্যবহার রোধ ও হাটের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আর পশুর হাটের নিরাপত্তায় আশপাশের এলাকায় গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর হবে। থাকবে জাল টাকা শনাক্তকারী মেশিন। পশুবাহী ট্রাকের চাঁদাবাজি ও পশুর হাটকে কেন্দ্র করে যেকোনো ধরনের অপতৎপরতা কঠোর হাতে দমন করবে পুলিশ বলেও জানান তিনি।

image_pdfimage_print




সংবাদটি ভাল লাগলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো সংবাদ










© All rights reserved © 2019 notunbarta24.com
Developed by notunbarta24.Com
themebazarnotunbar8765