মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ১০:১০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ
বাগেরহাটে ওয়ার্কিং কমিটির মৎস্য প্রক্রিয়াজাত কারখানা পরিদর্শণ হাজারো বেকারের কর্মসংস্থান তৈরীর লক্ষ্যে কাজ করছেন তারা বাগেরহাটে হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকদের কর্মবিরতি বাগেরহাটে পরিবার পরিকল্পনা সেবার মান উন্নয়নে ওয়ার্কিং কমিটির সভা রামপালে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বসতবাড়িতে ঢুকে গাছপালা কর্তনের অভিযোগ বা‌গেরহা‌টে কনসালটেশন ওয়ার্কশপ অনু‌ষ্ঠিত বাগেরহাটে আন্তর্জাতিক মাদক বিরোধী দিবস পালিত বাগেরহাটে মাতৃত্বকালীন ভাতা প্রদান কর্মসূচির উপকারভোগীদের প্রশিক্ষন শুরু দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারীদের দাত ভাঙ্গা জবাব দেয়া হবে – শেখ তন্ময় এমপি চিতলমারীতে বিক্ষোভকারীদের ইটের আঘাতে কৃষকলীগ নেতা আহত




পাঁচশো বছরের ঐতিহ্যবাহী মায়েদের বাজার

নতুনবার্তা ডেস্ক
  • প্রকাশ: বুধবার, ৭ আগস্ট, ২০১৯

বজি, মাছ , রান্নার জিনিসপত্র, তাজা ফলমূল, পোশাক থেকে শুরু করে অন্যান্য বাজারের মতো দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় সব কিছুই পাওয়া যায় মনিপুরের ‘ইমা কেইথল’ বাজারে। তবে এই বাজারের আলাদা একটা বৈশিষ্ট্য আছে। এখানকার ৪ হাজার ব্যবসায়ীদের সবাই নারী। স্থানীয়ভাবে ‘ইমা কেইথল’ অর্থ মায়েদের বাজার।

মিয়ানমার বর্ডার থেকে ৬৫ কিলোমিটার দূরে উত্তর-পূর্ব ভারতের ইম্ফাল শহরে এই বাজারটির অবস্থান। এশিয়ার মধ্যে এটি নারীদের পরিচালিত সবচেয়ে বড় বাজার। ধারণা করা হয় , গোটা বিশ্বেও এটিই নারীদের একমাত্র বড় বাজার।

মায়েদের এই বাজারটি ঠিক কত সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তা নিয়ে অনেক বিতর্ক রয়েছে। তবে ধারণা করা হয় ষোড়শ শতাব্দীর শুরুতে এই বাজারটি প্রতিষ্ঠিত হয়।

ইতিহাস থেকে জানা যায়, ‘ইমা কেইথল’ বাজারটি লাল্লুপ যুগে গড়ে ওঠে। ওই সময় মনিপুর সম্প্রদায়ের পুরুষদের প্রায়ই রাজাদের সেবায় ডাকা হতো। তখন তারা নারীদের ওপরই পরিবার ও কৃষিকাজের দেখাশোনার ভার দিয়ে চলে যেতেন।

তখন থেকেই ধীরে ধীরে বাজারটি গড়ে ওঠে। তবে শুধুমাত্র বিবাহিত নারীদেরই ওই বাজারে ব্যবসা করার অনুমতি আছে। বংশ পরষ্পরায় বিবাহিত নারীরা ব্যবসার সুযোগ পান।

বিভিন্ন সময়ে নারীদের এই বাজারের উপরে আক্রমণ নেমে এসেছে। ষড়যন্ত্র করা হয়েছে যাতে বাজার ভেঙে যায়। তবে নারীরা রুখে দাঁড়িয়েছেন। স্বাধীনতার আগে ১৯০৪ ও ১৯৩৯ সালে নারীরা রীতিমতো লড়াই করে বাজার রক্ষা করেছেন। তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় এই বাজার বেশ কিছুদিন পুরোপুরি বন্ধ ছিল।

ঐতিহ্যবাহী এই বাজারে নিয়মিত পর্যটকদের আনাগোনা দেখা যায়।এখানকার হস্তশিল্প, পোশাক এবং স্থানীয়ভাবে তৈরি জিনিসপত্র তাদের কাছে বেশ জনপ্রিয়। সূত্র : মেইল অনলাইন

image_pdfimage_print




সংবাদটি ভাল লাগলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো সংবাদ










© All rights reserved © 2019 notunbarta24.com
Developed by notunbarta24.Com
themebazarnotunbar8765