শুক্রবার, ১৩ মে ২০২২, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ
বর্তমান সরকারকে ক্ষমতায় রেখে কোন আলোচনা হতে পারে না – ড. এবিএম ওবায়দুল ইসলাম। বাগেরহাটে জেলা ওয়ার্কিং গ্রুপের সাথে স্থানীয় সরকারের কর্মকর্তাদের সভা ‘বাগেরহাটে ইউপি চেয়ারম্যানের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন ইউপি সদস্য’ ( ভিডিও) রমজানের চাঁদ দেখা গেছে, কাল রোজা বাগেরহাটে প্রতিবেশীদের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে কলেজ ছাত্রী ও মা বাগেরহাটে শিক্ষকদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে মানববন্ধন বিএনপি দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত – শেখ তন্ময় এমপি বাগেরহাটে জাতীয় পাট দিবস পালিত বাগেরহাটে জেলা ওয়াকিং কমিটির সাথে সাতক্ষীরা কমিটির অভিজ্ঞতা বিনিময় মোল্লাহাটে কৃষক দুলালের হত্যাকারীদের বিচারের দাবীতে মানববন্ধন




খুলনায় ৯ পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগের তদন্তে দুদক

খুলনা প্রতিনিধি
  • প্রকাশ: রবিবার, ৭ জুলাই, ২০১৯

জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্র্জন, মাদক ব্যবসায় সহযোগিতা, চাঁদাবাজি, নিয়োগ বাণিজ্যের ফাঁদ সৃষ্টিসহ বিভিন্ন অভিযোগে খুলনার ৯ জন পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের একাধিক টিম এসব অভিযোগের অনুসন্ধান করছে। এছাড়া প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ ও স্বর্ণালঙ্কার আত্মসাৎ এবং ঠিকাদারের কাছ থেকে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে ইতিমধ্যেই দুই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান শেষে মামলা করা হয়েছে।

দুদকের খুলনা সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের উপপরিচালক নাজমুল হাসান বলেন, খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট এলাকার একাধিক পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে। জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগই বেশি। এসব অভিযোগ দুদকের একাধিক টিম অনুসন্ধান করছে। অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সত্যতা মিললে মামলার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জানা যায়, নগরীর বয়রা পুলিশ লাইনের সাবেক রিজার্ভ অফিসার আইনুল হক সরদারের বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদের অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিরালা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ সোহেল রানার বিরুদ্ধে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের পাশাপাশি মাদক ব্যবসা ও চাঁদাবাজির অভিযোগ রয়েছে। খুলনা জোনের সিআইডির এসআই মধুসূদন বর্মণের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের।

খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের হরিণটানা থানার সাবেক ওসি সরদার মোশাররফ হোসেনের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আছে। খুলনা মেট্রোপলিটন পুলিশের গোয়েন্দা শাখার অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ঘুষ গ্রহণসহ ক্ষমতার অপব্যবহার করে কোটি কোটি টাকা অবৈধ পন্থায় উপার্জনের অভিযোগ মিলেছে।

নিয়োগ বাণিজ্য, ৭টি বাড়িসহ ৪০ কোটি টাকার জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে ডিআইজি অফিসের স্টেনোগ্রাফার আবদুর রউফ মল্লিকের বিরুদ্ধে। জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে মেহেরপুর জেলার সহকারী পুলিশ সুপার লিয়াকত হোসেন ও খুলনা রেঞ্জের বিভিন্ন থানায় কর্মরত আলোচিত সাবেক ওসি হাশেম খানের বিরুদ্ধে। যশোর জেলার কোতোয়ালি থানার এসআই সিহাবুর রহমানের বিরুদ্ধে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে অবৈধভাবে সম্পদের মালিক হওয়া এবং সাতক্ষীরা জেলার পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) তৈমুর ইসলামের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে।

এসব অভিযোগের বেশির ভাগই গত বছরের। দুদকের একাধিক টিম এসব অভিযোগের অনুসন্ধান করছে।এদিকে ঠিকাদারের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণের অভিযোগের প্রমাণ পাওয়ায় খুলনার আরআরএফের (রেঞ্জ রিজার্ভ ফোর্স) সাবেক কমান্ড্যান্ট (এসপি) ড. নাজমুল করিম খানের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এছাড়া জেলার ডুমুরিয়া উপজেলায় প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ ও স্বর্ণালঙ্কার আত্মসাতের ঘটনায় সিরাজগঞ্জের অবসরপ্রাপ্ত এসআই আনিছুর রহমানের বিরুদ্ধেও দুদক মামলা করেছে।

image_pdfimage_print




সংবাদটি ভাল লাগলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো সংবাদ










© All rights reserved © 2019 notunbarta24.com
Developed by notunbarta24.Com
themebazarnotunbar8765